বৃহস্পতিবার, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, বসন্তকাল | ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বৃহস্পতিবার, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ১৯শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ২৯শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মেহজাবীনের লক্ষ্যভেদ

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

বিনোদন ডেস্ক:

নাটকে কাজ কমিয়ে দেবো, বুঝে-শুনে বেছে কাজ করবো; এমন কথা কম-বেশি সব অভিনয়শিল্পীই বলেন। তবে অভিনেত্রী মেহজাবীন চৌধুরী যে স্রেফ বলার জন্য বলেননি, তা প্রমাণিত। অনেক দিন ধরেই তার নাটকের সংখ্যা কম, মান বেশি। যেই যেমন প্রায় ছয় মাস পর নতুন একটি নাটক নিয়ে হাজির হলেন সম্প্রতি। যেটার নাম ‘অনন্যা’। আর প্রচারের পর থেকেই মিলছে ভূয়সী প্রশংসা।
এক কর্মজীবী মায়ের সংগ্রাম নিয়েই গল্পটা এগিয়েছে। সেই মায়ের ভূমিকায় আছেন মেহজাবীন। গল্পটা সাদামাটা, কিন্তু তার অভিনয় আর সামাজিক বার্তা দর্শকের হৃদয়ে জায়গা করে নিচ্ছে। অন্তর্জালে নাটকটির নিচে জমা পড়ছে হাজারো ইতিবাচক মন্তব্য।
এসব দেখে মেহজাবীন নিজেও উচ্ছ্বসিত। কারণ, যে লক্ষ্য নিয়ে কাজটি করেছেন, সেটা সফল হয়েছে। অভিনেত্রী বললেন, “যেহেতু নারীকেন্দ্রিক গল্প এবং বিশেষ করে ওয়ার্কিং মাদার যারা, তাদের জন্যই কাজটি করা। লক্ষ্য ছিল, ‘অনন্যা’র মাধ্যমে সমাজে কিছু প্রশ্ন তুলে ধরা, নারীদের (ওয়ার্কিং উইমেন) জন্য কিছু সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা এবং তাদের ঘিরে কিছু ভুল ধারণা শুধরে দেওয়া। যেন কাজটি সবার মধ্যে পৌঁছালে নিজ নিজ জায়গা থেকে বিষয়গুলো অনুভব করেন। আমার মনে হয়, কিছুটা হলেও পৌঁছাতে পেরেছি। অনেকেই নাটকটি দেখে মন্তব্য করছেন, বিশেষ করে যাদের জন্য করা, সেই নারীরা। তাদের কাছে মনে হয়েছে, এটা যেন তাদেরই জীবনের গল্প। এর বাইরে ছেলে কিংবা পুরুষরাও দেখেছেন, তারাও স্ত্রী-মায়েদের অবস্থান অনুভব করতে পারছেন। যেই টার্গেট নিয়ে কাজটি করেছি, সেটা পূরণ হচ্ছে—এটাই তো অনেক বড় অ্যাচিভমেন্ট।’’


শুধু দর্শক কিংবা শোবিজ মহল নয়, ‘অনন্যা’র প্রশংসা করেছেন মেহজাবীনের মা-বাবাও। অভিনেত্রী জানান, নাটকটি দেখার পর তার মা-বাবা তাকে বাহবা দিয়েছেন।
জাহান সুলতানা ও জাকারিয়া নেওয়াজের চিত্রনাট্যে নাটকটি পরিচালনা করেছেন মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ। মেহজাবীনের সঙ্গে এতে অভিনয় করেছেন শাশ্বত দত্ত, ডলি জহুর, ইসরাত সালেহা, আজম খান, এবি রোকন, বেলায়েত হোসেন, তুষার মামুন প্রমুখ।
বিজয় দিবস উপলক্ষে গত ১৬ ডিসেম্বর সিনেমাওয়ালা ইউটিউব চ্যানেলে নাটকটি উন্মুক্ত করা হয়। দু’দিনেই এর ভিউ ছাড়িয়েছে ১৮ লাখ। ইউটিউব বাংলাদেশ ট্রেন্ডিংয়ে এটি অবস্থান করছে ৪ নম্বরে।

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপন দিন