সোমবার, ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, বসন্তকাল | ২৩শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার, ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ২৩শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ভাইয়ের হাতে সরকারী কলেজ শিক্ষক খুন, ভাই- ভাতিজা পলাতক

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

পলাশ বর্মন:

গাজীপুরের কালিয়াকৈরে জমি নিয়ে বিরোধের জেরে সরকারী কলেজের শিক্ষক ভাইকে পিটিয়ে খুন করার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় রোববার রাতে নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তবে আসামী গ্রেপ্তারে অভিযান চালাচ্ছে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ। নিহত শিক্ষক হলেন- কালিয়াকৈর উপজেলার সাজনধারা এলাকার আফাজ উদ্দিনের ছেলে রেজা সাইদ আল মামুন। তিনি উপজেলার চন্দ্রা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সরকারী কলেজেরে অর্থনীতি বিভাগের প্রধান ছিলেন।
এলাকাবাসী, নিহতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আফাজ উদিনের ছয় ছেলে ও চার বোনের মধ্যে পাঁচ নাম্বার ছিলেন সরকারী কলেজের শিক্ষক রেজা সাইদ আল মামুন। ওই শিক্ষকের বড় মেয়ে সূচনা আক্তার ওরফে সূচীকে বিবাহ দিয়েছেন। এছাড়া তিনি স্ত্রী এবং এসএসসি পরিক্ষার্থী ইফতেখার আজিম প্রত্যায় ও ১ম শ্রেনীতে পড়ুয়া নাফি নামে দুই ছেলেকে নিয়ে ছিল তার সংসার। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষকের সঙ্গে তার ভাইদের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। রোববার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার বলিয়াদী এলাকায় বংশাই নদীর ধারে নিজের ফসলি জমি দেখতে যান ওই শিক্ষক। সেখানে গিয়ে তিনি তার জমিতে কচুরিপানা দেখতে পান। তার ওই ফসলি জমিতে কচুরিপানা ফেলার কারণ জানতে চাইলে ক্ষিপ্ত হন তার বড় ভাই মজিবর রহমান। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় মজিবর ও তার ছেলে সুমন তাকে এলোপাথারী পিটিয়ে আহত করে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে গাজীপুরের জিরানী এলাকায় শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতাল ও নার্সিং কলেজে নিয়ে যান এলাকাবাসী। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই শিক্ষক রেজা সাইদ আল মামুনকে মৃত ঘোষণা করেন। এসময় নিহতের শরীরে কাঁদা মাখা, আঙ্গুল ফাটা, গলা ফুলাসহ বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন ছিল। পরে এলাকাবাসী নিহতের লাশ নিয়ে তার গ্রামের বাড়ি সাজনধারা নিয়ে গেলে এক হৃদয়বিধারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ঘাতক ভাই মজিবর রহমান ও তার ছেলে সুমন পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী, কালিয়াকৈর পৌরসভার মেয়র মজিবুর রহমান ও কালিয়াকৈর থানার ওসি এ এফ এম নাসিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সেখানে ছুটে যান কলেজের সহকর্মী, স্বজনসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ। এসময় ওই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। পরে রাত ৮টার দিকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। পরে এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী হাসিনা আক্তার বাদী হয়ে চারজনের নাম উল্লেখ করে কালিয়াকৈর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকে হত্যাকান্ডের ওই আসামী ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ।
নিহতের মেয়ে সূচনা আক্তার ওরফে সূচী বাবার লাশের পাশে আহাজারীতে বলছিল, আব্বু তুমি আদর্শ পিতা, আদর্শ শিক্ষক। তুমি মিথ্যা বলা শিখাওনি, আব্বু তুমি বলেছে অন্যায় সহ্য করবা না। আব্বু তোমাকে যারা পিটিয়ে মেরে ফেলেছে, তাদের ছাড়বো না। আমরা তোমার হত্যাকারীদের বিচার করবো।
কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম নাসিম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জমি নিয়ে বিরোধের জেরে এক ভাই আরেক ভাইকে খুন করেছে। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এখনো আসামী গ্রেপ্তার করা যায়নি। তবে আসামীদের গ্রেপ্তারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপন দিন