বুধবার, ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, বসন্তকাল | ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
বুধবার, ৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ১১ই শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ২১শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ২৪ ঘণ্টায় ২০০ জন নিহত : হামাস

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

গাজায় ইসরায়েলি হামলায় ২৪ ঘন্টায় ২০০ জনেরও বেশি লোক নিহত হয়েছে। হামাস কর্তৃপক্ষ শনিবার এ কথা বলেছে।
বেসামরিক নাগরিকদের সুরক্ষায় আরও কিছু করার জন্য মিত্র ইসরায়েলকে যুক্তরাষ্ট্রের চাপের মধ্যেই এই হামলা চালানো হচ্ছে।
যুদ্ধ-বিধ্বস্ত ফিলিস্তিনিদের প্রতি সংযম এবং আরও সাহায্য পৌঁছানোর ক্রমবর্ধমান আহ্বান সত্ত্বেও, হামাসকে পরাস্ত করার লক্ষ্যে ইসরায়েল তার ১১-সপ্তাহ ধরে চলমান ‘অপারেশন সোর্ডস অফ আয়রন’ অভিযানে সামান্যতম সংযম পরিলক্ষিত হয়নি।
যুদ্ধ এখন গাজা সিটি এবং দক্ষিণের শহর খান ইউনিসকে কেন্দ্র করে, উভয়ই ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ যোদ্ধাদের শক্ত ঘাঁটি হিসেবে বিবেচিত হয়।
ইসরায়েলি ভারী অস্ত্রের হামলার খবরের পর, উপকূলীয় অঞ্চলের উত্তরে এবং খান ইউনিসে ধূসর এবং কালো ধোঁয়া দেখা যায়।
শরণার্থী শিবিরে পরিণত হওয়া শহরটি গাজায় হামাসের নেতা ইয়াহিয়া সিনওয়ারের জন্মস্থান এবং অক্টোবরের হামলার জন্য তাকে সবচেয়ে বেশি দায়ী করছে ইসরাইল।
ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর প্রধান স্টাফ হার্জি হালেভি, খান ইউনিসের মাটিতে সৈন্যদের অবস্থান পরিদর্শন করেছেন, তাদের বলেছেন যে অপারেশনটি ‘খুবই চিত্তাকর্ষক, এখানে আক্রমণ এবং একটি নিরাপদ পদ্ধতিতে অপারেশন চালানো উভয়ই সত্যিই খুব চিত্তাকর্ষক ছিল’।
শহরের নাসের হাসপাতালের একটি মর্গের বাইরে, শোকার্ত স্বজনরা প্রার্থনা করেছিলেন, কাঁদছেন এবং শূন্যভাবে তাকিয়ে ছিলেন, তারা অপূরণীয় ক্ষতির প্রতিক্রয়া জানানোর চেষ্টা করেছিলেন।
হামাস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই যুদ্ধে মৃতের সংখ্যা এখন ২০,০০০ ছাড়িয়েছে।
গাজার বাসিন্দা রাফাত আল আইদি বলেছেন, ‘এটি একটি গণহত্যা।’
ওয়াশিংটনে, প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, তিনি ইসরায়েলের যুদ্ধবাজ প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর সাথে আরেকটি ‘দীর্ঘ আলোচনা’ করেছেন।
হোয়াইট হাউস বলেছে, আলোচনায় ইসরায়েলের সামরিক অভিযানের ‘উদ্দেশ্য এবং পর্যায়’ এবং সেইসাথে ‘মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে সমর্থনকারী সহ বেসামরিক জনসংখ্যার সুরক্ষার জন্য গুরুত্বপূর্ণ প্রয়োজনীয়তার’ উপর আলোকপাত করা হয়েছে।
ইসরায়েলি কর্মকর্তারা এই আহ্বানের একটি সংক্ষিপ্ত রিডআউট দিয়ে বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী স্পষ্ট করেছেন যে ইসরায়েল তার সমস্ত লক্ষ্য অর্জন না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ চালিয়ে যাবে’।
প্রায় এক মাস আগে স্থল অভিযান শুরু হওয়ার পর থেকে মোট ১৪৪ ইসরায়েলি সেনা নিহত হয়েছে।
ইসরায়েলের সবচেয়ে দীর্ঘ মেয়াদী প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুর সাথে মার্কিন প্রেসিডেন্টদের একটি ধারাবাহিক পরীক্ষিত সম্পর্ক ছিল কিন্তু গাজা যুদ্ধ কীভাবে বিচার করা হচ্ছে, কখন এটি শেষ হবে এবং পরের কী ঘটবে তা নিয়ে মতবিরোধ আরও বেশি টানাপোড়েনে পড়েছে।
শুক্রবার, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের একটি প্রস্তাব পাস করার অনুমতি দেয় যাতে কার্যকরভাবে ইসরায়েলকে ‘তাৎক্ষণিক, নিরাপদ এবং বাধাবিহীনভাবে’ গাজায় জীবন রক্ষাকারী সহায়তা প্রদানের অনুমতি দেওয়ার জন্য বাধ্যবাধকতা রয়েছে।
জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ত্রাণ বিতরণে ‘ব্যাপক বাধা সৃষ্টির’ অভিযোগ করেছেন।
গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফাহ শহরের ফিলিস্তিনিদের জন্য পৌঁছানা সহায়তা যথেষ্ট ছিল না।
উদ্বাস্তু মাহমুদ আল-শায়ের বলেন, ‘আমরা খাবার চাই না, আমরা যুদ্ধবিরতি চাই।’
আরও উত্তরে বেইত লাহিয়া থেকে বাস্তুচ্যুত হওয়া আহমেদ আল-বুরাভি বলেছেন, ‘আমরা শুধু আমাদের জমিতে ফিরে যেতে চাই, এটাই সব। যুদ্ধের অবসানের জন্য আমরা একটি সমাধান চাই’ ‘মানুষ মারা যাচ্ছে’।
জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী , যুদ্ধের কারণে গাজার ২.৪ মিলিয়ন জনসংখ্যার প্রায় ৮০ শতাংশ বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপন দিন