সোমবার, ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ, বসন্তকাল | ২৩শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
সোমবার, ২০শে ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ | ২৩শে শাবান, ১৪৪৫ হিজরি | ৪ঠা মার্চ, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কালিয়াকৈরে বন বিভাগের অভিযানে প্রায় ৬০ লাখ টাকার জমি উদ্ধারগ

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

পলাশ বর্মন:

গাজীপুরে কালিয়াকৈরে বনবিভাগের অভিযানে প্রায় ৬০ লাখ টাকার জবর দখলীয় বনের জমি উদ্ধার করা হয়েছে। চন্দ্রা রেঞ্জ ও বিটের আওতাধীন পশ্চিম চান্দরা কারিকর পাড়া এলাকায় বৃহস্পতিবার এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বনের জমি জবর দখলকারীর সীমানা প্রাচীরের টিনের বেড়া ও সিমেন্টের খুটি ভেঙ্গে দেওয়া হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও অভিযান সূত্রে জানা যায়, চন্দ্রা রেঞ্জ ও বিটের আওতাধীন পশ্চিম চান্দরা কারিকর পাড়া এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে রাইজদ্দিনের ছেলে ওসমান আলী বনের জমি দখল করে প্রথমে একটি টং দোকান করে। এরপর কিছুদিন যেতে না যেতেই দোকানের সাথে একটি টিনের চাল দিয়ে দোকান ঘরটি বড় করে। এর কয়েক মাস পরে দোকানের সামনে পৌরসভার রাস্তা সংলগ্ন গজারি গাছসহ বনবিভাগের প্রায় ১০ শতাংশ জমি সিমেন্টের খুটি গেরে টিন ও বাশ দিয়ে বেড়াদিয়ে জবর দখল করে নেয়। তার দখলিয় বনের জমিতে থাকা বেশ কয়েকটি গজারি গাছ কৌশলে মেরে ফেলা হয়। এছাড়াও ওসমান আলী বনের জমিতে বেড়াদিয়ে ওই এলাকার রেকর্ডিয় জমিতে গড়ে উঠা কলোনীতে বসবাসরত লোকজনের যাতায়াতে সমস্যা সৃষ্টিসহ বনের গাছ মেরে ফেলে বনবিভাগেরও ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। বিষয়টি চন্দ্রা রেঞ্জ ও বিট অফিসে বিভিন্ন মাধ্যমে জানায় ওই এলাকার বনের উপকারভোগী ও এলাকাবাসী। অভিযোগের পর কয়েক মাস আগে ওই এলাকায় বনবিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তা এসিএফ পরিদর্শনে আসলে সীমানা প্রাচীরের মাধ্যমে বনবিভাগের জমি জবর দখলের বিষয়টি তাদের নজরে আসে। এর পরই কারিকর পাড়া আলহেরা জামে মসজিদের সামনে থেকে প্রায় তিন কোটি টাকার বনবিভাগের জমি উদ্ধার করে বাগানের চারা রোপন করে চন্দ্রা রেঞ্জ ও বিট অফিসের কর্মকর্তারা। এরই ধারাবাহিকতায় ওই এলাকায় ওসমান গনির দখলে থাকা সীমানা প্রাচীর বেষ্টিত বনের জমি উদ্ধারের সিদ্ধান্ত নেয় চন্দ্রা বিট অফিস। সেই সুবাদে বৃহস্পতিবার চন্দ্রাবিটের স্টাফ মোঃ মহসিনের নেতৃত্বে ওই এলাকায় অভিযান চালিয়ে বনবিভাগের দখল হওয়া প্রায় ৬০ লাখ টাকা মূল্যের ১০ শতাংশ জমি উদ্ধার করা হয়। এসময় বনের জমি দখলে প্রাচীরের জন্য ব্যবহার করা টিনের ও বাশের বেড়া খুলে দেওয়া হয় এবং সিমেন্টের খুটি ভেঙ্গে ফেলা হয় ।
চন্দ্রা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ মনিরুল করিম জানান, ওই এলাকায় আমাদের অফিসের স্টাফরা বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে জবর দখর হওয়া বনের জমি উদ্ধার করে। এর আগেও ওই এলাকায় প্রায় ৩ কোটি টাকার বনের জমি উদ্ধার করে বনবিভাগের পক্ষ থেকে বন বাগানের চারা রোপন করে বনায়ন করা হয়েছে। তবে বনের জমি জবর দখলের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Facebook
LinkedIn
Twitter
WhatsApp
Telegram
Email
Print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

বিজ্ঞাপন দিন